শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন
দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

 

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আরিচা ও পাটুরিয়ায় যাত্রীদের উপচে পড়া ভীড় দুর্গতি মানুষের

  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩১ জুলাই, ২০২১
  • ১৭৯ বার দেখেছে
উপচে পড়া ভির মানুষের
উপচে পড়া ভির মানুষের

জেএ যাদু

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আরিচা ও পাটুরিয়ায় যাত্রীদের উপচে পড়া ভীড় দুর্গতি মানুষের আজ শনিবার (৩১ জুলাই) ভোর হতেই কর্মমুখী মানুষের ঢল নামতে থাকে অরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে। দিন বাড়ার সাথে সাথে মানুষের ভীড়ও বাড়তে থাকে। শনিবার সকাল  থেকে বিকাল পর্যন্ত সরজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, ঢাকামুখী মানুষের স্রোত সেই সাথে তাদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগের দৃশ্য। গ্রামে অবস্থানরত মানুষ তাদের জীবিকার এক মাত্র অবলম্বন চাকুরি বাঁচাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ছুটতে থাকে কর্মস্থলের দিকে। তবে, শিল্প কারখানা খোলা হলেও গণপরিবহণ চালু করা হয়নি। যার কারণে সাধারণ ও খেটে খাওয়া অভাবী মানুষ চরম বিপাকে পড়েছেন। একদিকে কারখানা খোলা অপরদিকে যাওয়ার জন্য কোন পরিবহণ নেই। গণপরিবহণ না থাকায় সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের যেন কোন সীমা নেই। উত্তরাঞ্চলের পাবনা, বেড়া, নাকালিয়া, সাথিয়া, কাজিরহাট, ঈশ্বরদী, কাশিনাথপুর, দক্ষিণাঞ্চলের  খুলনা, কুষ্টিয়া, ফরিদপুর, রাজবাড়ী, মাগুরা, যশোর, ঝিনাইদহ, দৌলতপুর, রাজবাড়ী, গোয়ালন্দ, কুমারখালিসহ বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা হতে হাজার হাজার মানুষ ঢাকা যাওয়ার উদ্দেশ্যে আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে এসে ভিড় করে আছেন। কোন পরিবহণ না পেয়ে বেশীর ভাগ মানুষ গরুর  ট্রাকে জনপ্রতি ৫শ’ টাকা ভাড়া দিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন। এছাড়াও সিএনজি, অটোরিক্সা, মটর সাইকেল, পিক-আপ ভ্যান, কাভার্ড ভ্যান সাধারণ মালবাহী অটো ভ্যানসহ যে যেভাবে পারছেন ১০ গুণ ভাড়া দিয়ে চাকুরি বাঁচাতে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়েছেন। দুই ঘাটে অবস্থানরত শতাধিক যাত্রীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, তাদের শারিরীক, মানসিক  ও আর্থিক দুর্ভোগের কথা। সাথিয়া হতে আগত রেহেনা বেগম বলেছেন, আমরা জানি আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত অফিস বন্ধ। কিন্তুু শুক্রবার  হঠাৎ করে অফিস থেকে ফোন দিছে ১ তারিখে অফিসে না গেলে চাকুরি থাকবে না কন কি করম? সাথিয়া থেকে আরিচা ঘাট পর্যন্ত আসতে ৯শ’ টাকা লাগছে। এখন আরিচা থেকে সাভার যেতে ট্রাকে ৫শ’ আর সিএনজিতে ৮শ’ টাকা চায়। এমনিতেই জান বাচেনা তার পর ১শ’ টাকার ভাড়া ১হাজার টাকা। ‘আমাগো এখান  মরণ ছাড়া গতি নাই’। কুষ্টিয়া হতে আসা ছোহরাব হোসেন বলেন, ভাই কুষ্টিয়া হতে ৫/৬ বার রিক্সা, ভ্যান, অটো বদল করে  দৌলতদিয়া হয়ে  ফেরিতে পাটুরিয়া ঘাটে আসি। এতে আমার খরচ হয়েছে ১হাজার টাকা। এখন পাটুরিয়া থেকে পিক-আপে  ঢাকার ভাড়া চায় ১হাজার টাকা। কন কেমনে বাচুম? এমনিতেই টাকা পয়সা সব শেষ। তার ওপর এই জালা। রাজবাড়ী হতে আসা  জুলেখা বেগম বলেন, অফিসে যাওয়ার কোন গাড়ি না ছেড়ে অফিস খুললো। আমরা অফিসে যামু কেমনে কেউ ভাবলো না। এহন আমাদের কত কষ্ট। আমাগো কথা কেউ ভাবে না-রে ভাই! তার কান্না জড়িত আবেগঘন কথায় তার সাথে থাকা রহিমা বেগম আনোরা বেগম, সোলেমান, রহম আলী, সোবহানসহ অনেকেই সায় দিলেন। তারা বললেন, গরিবের কথা কেউ ভাবে নারে ভাই।এদিকে, আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাট ঘুরে নারী, শিশু, কিশোর ও বৃদ্ধদের অবর্ণনীয় দুর্ভোগ লক্ষ্য করা গেছে।  দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে তারা ক্লান্ত। তার উপর ঘাটের আশে পাশের কোথাও খাবারের  ব্যবস্থা না থাকায় যাত্রীরা  আরো কাহিল হয়ে পড়েছেন। প্রকৃতির ডাকেও সারা দেওয়ার কোন ব্যবস্থা নাই। একদিকে চলতি পথে সাধারণ ও অসহায় মানুষের  সীমাহীন দুর্ভোগ। অপরদিকে, এমতাবস্থায় করোনা সংক্রমন বৃদ্ধির ঝুঁকিও রয়েছে বলে বিশেষজ্ঞ মনে করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
দৈনিক দেশ টিভি

দেশ প্রতিদিন টিভি

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন

দৈনিক দেশ প্রতিদিন